জিউস

গ্রিক পুরাণে জিউস হলেন "দেবগণ ও মানবজাতির পিতা"। হেসিয়ডের থিওজেনি অনুসারে, তিনি পরিবারের পিতার ন্যায় মাউন্ট অলিম্পাসের অলিম্পিয়ানদের শাসন করতেন। গ্রিক পুরাণে তিনি ছিলেন আকাশ ও বজ্রের দেবতা। গ্রিকদের বিশ্বাসে তিনি দেবরাজ। জিউস নিরন্তর বিশ্বব্রহ্মাণ্ডকে পর্যবেক্ষণ করেন। পসেনিয়াস লিখেছেন, "জিউস স্বর্গের রাজা, এই প্রবাদটি সকলেই জানেন।" হেসিয়ডের থিওজেনি গ্রন্থের মতে, জিউস বিভিন্ন দেবতাদের মধ্যে তাঁদের দায়িত্ব বণ্টন করে দেন। হোমারীয় স্তোত্রাবলি-তেও তাঁকে দেবতাদের প্রধান বলা হয়েছে। হেসিয়ডের থিওজেনি গ্রন্থে তাঁকে "দেবগণ ও মানবজাতির পিতা" বলেও অভিহিত করা হয়েছে। তাঁর প্রতীকগুলি হল বজ্র, ঈগল, ষাঁড় ও ওক। ইন্দো-ইউরোপীয় ঐতিহ্যের এই সকল নিদর্শনগুলি ছাড়াও, এই ধ্রুপদি "মেঘ-সমাবেশকারী" প্রাচীন নিকট প্রাচ্য থেকেও কিছু মূর্তিতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্য অর্জন করেছেন। এর উদাহরণ হল রাজদণ্ড। গ্রিক শিল্পীরা মূলত দুটি ভঙ্গিতে জিউসের মূর্তিগুলি নির্মাণ করেছেন: প্রথমত, দণ্ডায়মান অবস্থায় দ্রুত-অগ্রসর হওয়ার ভঙ্গিতে, যেখানে তিনি ডান হাতে বজ্র উঁচিয়ে থাকেন এবং দ্বিতীয়ত রাজসভায় উপবিষ্ট মূর্তিতে।
মধুসূদন মঞ্চ
মধুসূদন মঞ্চ হল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের রাজধানী কলকাতা শহরের ঢাকুরিয়া অঞ্চলে অবস্থিত একটি
স্বামী বিবেকানন্দের মূর্তি (গোলপার্ক)
স্বামী বিবেকানন্দের মূর্তি হল হিন্দু সন্ন্যাসী স্বামী বিবেকানন্দের (১৮৬৩–১৯০২) একটি মূর্তি
কলকাতা উত্তর পূর্ব লোকসভা কেন্দ্র
কলকাতা উত্তর পূর্ব লোকসভা কেন্দ্র ভারতীয় প্রজাতন্ত্রের একটি অধুনালুপ্ত লোকসভা (সংসদীয়
কাংড়া জেলা
কাংড়া জেলা হল ভারতের হিমাচল প্রদেশ রাজ্যের একটি জেলা। এটি হিমাচল প্রদেশের সবচেয়ে জনবহুল জেলা
শ্যামপুকুর বাটী
শ্যামপুকুর বাটী হল রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের একটি শাখাকেন্দ্র। এটি একটি হিন্দু মঠ ও জাদুঘর। শ্যামপুকুর
কাটাপাহাড়
কাটাপাহাড় হল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের দার্জিলিং শহরের একটি শৈলশিরা। কাটাপাহাড় ও জালাপাহাড়
ধলভূম
ধলভূম হল অধুনা পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলার অন্তর্গত খাতড়া মহকুমার সুপুর ও অম্বিকানগর পরগনা
ভারতের অর্থনৈতিক উন্নয়ন
ভারতের অর্থনৈতিক উন্নয়ন দেশের স্বাধীনোত্তর ইতিহাসে মোটামুটি সমাজতান্ত্রিক ধাঁচের নীতিতে
মার্কণ্ডেয়
মার্কণ্ডেয় ছিলেন একজন প্রাচীন হিন্দু ঋষি। তিনি ঋষি ভৃগুর বংশে জাত। মার্কণ্ডেয় শিব ও বিষ্ণু উভয়
হিপোক্যাম্প (প্রাকৃতিক উপগ্রহ)
হিপোক্যাম্প হল নেপচুন গ্রহের একটি ক্ষুদ্রাকার প্রাকৃতিক উপগ্রহ। ২০১৩ সালের ১ জুলাই তারিখে