2019 Top Ten of Polemic for Religion

আল্লাহ
আল্লাহ একটি আরবি শব্দ। ইসলাম ধর্মানুযায়ী যার দ্বারা "বিশ্বজগতের একমাত্র স্রষ্টা এবং প্রতিপালকের নাম" বোঝায়। "আল্লাহ" শব্দটি প্রধানত মুসলমানরাই ব্যবহার করে থাকেন। মূলত “আল্লাহ্” নামটি
সালেহ
সালেহ (আ:) কুরআনের বর্ণনা অনুসারে, তিনি ছিলেন একজন নবী। যাকে 'সামূদ জাতির' উদ্দেশ্যে আল্লাহ প্রেরণ করা হয়েছিল। তারা নূহ এর পুত্র সামের বংশধর এবং প্রাচীন আরব জাতিসমূহের একটি
শানে নুযূল
শানে নুযূল বলতে বুঝায় মুসলমানদের ধর্মীয় গ্রন্থ কুরআনের কোন একটি সূরা বা এর অংশবিশেষ অবতীর্ণ হওয়ার প্রেক্ষাপট বা ইতিহাসকে
তন্ত্র
তন্ত্রের দৃষ্টিতে শরীর প্রধান নিমিত্ত; শরীর ছাড়া চেতনার উচ্চস্তরে পৌঁছানো যায় না। এজন্য তন্ত্রের গূঢ়ার্থ নিজ 'তন' বা দেহের মাধ্যমে আপন আত্মার 'ত্রাণ' বা উদ্ধারও বলা হয়ে থাকে। বাস্তবক্ষেত্রে
ইহুদি ধর্ম
ইহুদি ধর্ম একটি প্রাচীন অব্রাহামীয় একেশ্বরবাদী ধর্ম। ধারণাগত মিল থেকে ধর্মতাত্ত্বিকগণ মনে করেন যে, ইহুদিধর্মের ধারাবাহিকতায় গড়ে উঠেছে খ্রিস্টধর্ম, ইসলাম ও দ্রুজ, বাহা'ইধর্ম প্রভৃতি অব্রাহামীয়
মুহাম্মাদের সমালোচনা
মুহাম্মাদের সমালোচনা সপ্তম শতক থেকেই বিদ্যমান। যখন মুহাম্মদ একেশ্বরবাদ প্রচার শুরু করেন তখন আরবের অমুসলিমরা নিন্দা জ্ঞাপন করে। তিনি বাইবেলে বর্ণিত বিভিন্ন ব্যক্তি ও তাদের যেভাবে বর্ণনা দেওয়া
প্রথম ফিতনা
প্রথম ফিতনা ছিল ইসলামের প্রথম গৃহযুদ্ধ। ৬৫৬ সালে মিশরীয় বিদ্রোহীদল কর্তৃক খলিফা উসমান ইবনে আফফানকে হত্যার পর এই ফিতনা শুরু হয়। তার উত্তরাধিকারী আলি ইবনে আবি তালিবের খিলাফতকালে এই অবস্থা চলতে
সূরা কুরাইশ
সূরা কুরাইশ মুসলমানদের ধর্মীয় গ্রন্থ কুরআনের ১০৬ তম সূরা। এই সূরাটি মক্কায় অবতীর্ণ হয়েছে এবং এর আয়াত সংখ্যা ৪ টি
বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ
এই নিবন্ধে যাদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে তারা বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ হিসেবে পরিচিত। এতে ধর্মের সকল প্রধান শাখা ও সকল সম্প্রদায়ের ব্যক্তিকে, যারা বৌদ্ধ ধর্মের অনুসারী তাদের
খলিফাদের তালিকা
এটি খলিফা হিসাবে পরিচিত ইসলামী রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ ধর্মীয় ও রাজনৈতিক নেতা এবং মুহাম্মদ (সাঃ) এর রাজনৈতিক উত্তরসূরি হিসাবে ইসলামী উম্মাহর শাসকের পদবি অর্জনকারীদের তালিকা। সমস্ত বছর খ্রিস্টাব্দ